Notice :
আমাদের সাইটে আপনাদের স্বাগতম
রাজনৈতিক দল নিবন্ধন আইনের খসড়ায় অনুমোদন দিয়েছে নির্বাচন কমিশন

রাজনৈতিক দল নিবন্ধন আইনের খসড়ায় অনুমোদন দিয়েছে নির্বাচন কমিশন

নিউজ ডেক্স: কমিশনার মাহবুব তালুকদার নোট-অব-ডিসেন্ট (ভিন্ন’মত) দিলেও রাজনৈতিক দল নিবন্ধন আইনের খসড়ার অনুমোদন দিয়েছে নির্বাচন-কমিশন (ইসি)। প্রয়োজনীয় সংশোধন’সহ-এর অনুমোদন দেয়া হয়। সংশোধনী’গুলো সম্পন্ন হলে এটি আইন-মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে।

আগারগাঁও নির্বাচন-ভবনে বুধবার (২৬ আগস্ট) প্রধান নির্বাচন-কমিশনার কে এম নুরুল হুদার সভা’পতিত্বে অনুষ্ঠিত কমিশন-সভায় এটি অনুমোদন পায়। সভায় কমিশনার মাহবুব তালুকদার এই আইনের-বিরোধিতা করে কমিশন-সভায় নোট-অফ-ডিসেন্ট দিয়েছেন। এর আগে এই ব্যাপারে ইসিতে নিবন্ধিত রাজনৈতিক’গুলোর মতামত চাওয়া হয়।

জানা যায়, সভা শেষে নির্বাচন কমিশনের সিনিয়র-সচিব মো. আলমগীর সাংবাদিকদের বলেন, কমিশন আইনের সার্বিক-দিক পর্যালোচনা করে কিছু সংযোজন-বিয়োজনের নির্দেশনা’সহ এটি অনুমোদন দিয়েছে। আমরা আগামী-সপ্তাহের মধ্যেই সংযোজন-বিয়োজন সম্পন্ন করে কমিশনার’দের কাছে উপস্থাপন করব। তারা এটি দেখার পর পরবর্তী পদ’ক্ষেপের জন্য সরকারের সংশ্লিষ্ট-দফতরে পাঠানো হবে।

তিনি বলেন, বর্তমানে সংসদ-নির্বাচনের পাশা’পাশি স্থানীয় সরকার পরিষদ দলীয় প্রতীকে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। কিন্তু নিবন্ধনের বিষয়টি আরপিওতে থাকলে তা কেবল সংসদ-নির্বাচনের জন্য প্রযোজ্য হয়। এ ক্ষেত্রে স্থানীয় সরকার নির্বাচনে দলীয়-প্রতীকের জন্য আলাদা-আইনের প্রয়োজন পড়বে। আরপিও থেকে নিবন্ধনের-চ্যাপ্টারটি বের করে একটি স্ব’তন্ত্র-আইন করা হলে এক্ষেত্রে কোনো স’মস্যা হবে না।

মো. আলমগীর বলেন, আধুনিক দলের নিবন্ধনের বিষয়টি ৭২ সালের গণ-প্রতিনিধিত্ব আদেশে (আরপিও) ছিল না। এটি ২০০৮ সালে আরপিওতে-যুক্ত হয়েছে। তখন আলাদা আইনের কথা উঠেছিল। কিন্তু সময়ের অভাবে তড়ি’ঘড়ি করে এটিকে আরপিওতে-যুক্ত করা হয়। তবে বর্তমান কমিশন-রাজনৈতিক দলের নিবন্ধনের বিষয়টি আলাদা-করে আইন করার প্রয়োজন বলে মনে করছে। তারা মনে করছে, আইনের এই অংশটি আরপিও থেকে বের করে স্ব’তন্ত্র করা উচিত। তা’ছাড়া সরকারের একটি সিদ্ধান্ত আছে, সব আইন’গুলো বাংলায় প্রণয়ন করার। যার কারণে এটি বাংলায় করা হচ্ছে।

এখান থেকে শেয়ার দিন

Comments are closed.




© All rights reserved © 2019 agambarta24.com
Design BY NewsTheme